Welcome

আগষ্ট উপহার //সেলিম মিয়া।

গভীর-শ্রদ্ধা-চিত্তে মুজিব-আদর্শে, আগষ্ট-পায়-প্রাণ; ভোগে ভরা ধনের দুয়ারে,শোকে ভরা আগষ্ট- এ এতিম খোঁজে, মুজিব মহত্ত্বের অন্ন-বস্ত্র-বাসস্থান।

নব্য-বড় খাদ্য-গৃহে, এতিমের পক্ষে এক অক্ষমের আকুতি, নেতার-সরল-বিবৃত্তি, পিতৃ বিয়োগ! ওকে রেখে আয়; ঐ-করুনা-পাত্রের অভ্যান্তরিণ এতিমখানায়, সনাতনি হলে আশ্রমের আশ্রয়।

বড় ভাই, ওগুলো-তো অধিকাংশই অপ্রতুল ও অব্যবস্থাপনার হযবরলায় ভরপুর। ওহে অক্ষম, তাতে তোর কি? তা তেমন কিছু না, তবে; সাদাকে কালোর প্রলয়ে, কালোকে লাল প্রবালের চাকচিক্যের মোহে, এ যেন পৃথিবীর মাঝে আরেক পৃথিবীর, কাক ময়ূরের বিবাহ নিমন্ত্রণ।

কিরে অক্ষম, এযে কবিতা, তুই কবি হইলি কবে? বড়ভাই আরেকটু বলি! এ কবিতা নয় এ বাস্তবতা, মুজিব আত্মা এসেছে, দুঃখ ভারাক্রান্তে যা দেখছে তা- বিষাদের বিষন্নতায়, সারল্যের কমলতায়, অব্যক্ত ভাষায়, সদ্য এতিমের কতকি আকুতি-মিনতি; অর্ধাহারে গুমরে কাঁদে, সমাজ-তান্ত্রিক পুষ্টিহীনতায়।

অথচ; আভিজাত্যের সদরে-অন্দরমহলে আয়োজন; অতিথি আপ্যায়ন, কত শত খাবার, আবর্জনার স্তূপে, তা আবার, অপেক্ষ্যমান ক্ষুধার্ত টোকাইর খাদ্য-রূপে । হে কবি অক্ষম, অতীত কবিই পারে নাই,তুই কি করবি? বড় ভাই, তুমি সক্ষম তুমিই করবে! কবিদের উদাহরণ।

মুজিব আদর্শের সাময়িক সন্তোষে, কিছু প্রায়াশ্চিত্তের প্রয়াসে, অন্ধ প্রেমের গৃহে, খুলেছে আমার মনের চোখ। এতিম পাই, এক সাথে এক টেবিলে এক খাবার খাই। হে’ শোকাবহ আগস্ট, মুজিব আত্মার শান্তি কামনায় শোক-সান্ত্বনায় এ’আমার পূর্ব প্রেমের পশ্চিম উপহার। হে বিধাতা! এমন সমর্থ সুযোগ দিও আমায়, বারবার।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *